• শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ০৭:২৭ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]

পরীক্ষা কম মানে অবমুল্যায়ন নয়: দীপুমনি

নিজস্ব প্রতিনিধি
প্রকাশিত : রবিবার, ১৩ মার্চ, ২০২২

আমাদের রংপুর ডেক্স:
শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি বলেছেন অনেক দেশে শিক্ষার্থীর পরীক্ষা নেন না। বছরের একটি পরীক্ষা হয়। পরীক্ষা কম মানে অবমুল্যায়ন নয়। সারাক্ষন পড়া, কোচিং আর পরীক্ষা নয়। শিক্ষার্থীদের মানবিক ও সকল বিষয়ে দক্ষ করে গড়ে তুলতে হবে। কম পড়িয়ে কম পরীক্ষার মধ্যেই দক্ষতা বাড়ে।
রবিবার দুপুরে লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার কাকিনা উত্তর বাংলা কলেজে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদর্যাপন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপুমনি বলেন, গবেষনা ছাড়া সকল মাধ্যমিক শিক্ষাকে জাতীয়করন করা সম্ভব নয়। গবেষনায় শিক্ষার মানউন্নয়নে জাতীয়করনের ইতিবাচক ফল এলে আর্থিক সক্ষমতা বুঝে জাতীয়করন করা হবে। অন্যথায় সকল মাধ্যমিক বিদ্যালয় জাতীয়করন করা সম্ভব নয়। কারন শিক্ষার মানউন্নয়নই এ সরকারের প্রধান লক্ষ্য। শেখ হাসিনা সরকার শিক্ষা বান্ধব সরকার।

ডা. দীপুমনি আরও বলেন, ঝঁড়ে পড়ার হার অনেক কমে গেছে। আমরা সবাইকে শিক্ষায় নিয়ে আসতে পেরেছি। আমরা শিক্ষার মান উন্নয়নে কাজ করছি। আমরা চাইছি শুধু শিক্ষা নয়, শিক্ষার্থীদের মাঝে সকল বিষয়ে দক্ষতা বাড়িয়ে ভাল মানুষ হিসেবে শিক্ষার্থীদের গড়ে তুলতে। বঙ্গবন্ধু যেমন সোনার বাংলায় সোনার মানুষ চেয়েছেন। আমরা সেই সোনার মানুষ তৈরী করছি।
তিঁনি বলেন, শিক্ষার্থীদের মানবিক, মূল্যবোধ, অসম্প্রদায়ীকতা, ধর্মান্ধতা ও দক্ষ হয়ে টেকসই উন্নয়নে চতুর্থ বিপ্লব ঘটাতে হবে। এজন্য সকল শিক্ষার্থীকে কারিগরি শিক্ষায় দক্ষতা অর্জন করতে হবে। বর্তমান সরকার এ বিষয়ে বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিয়েছে । সীমিত সম্পদে সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে সেলক্ষে শিক্ষকদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ করা হচ্ছে।

এমপিওভূক্তি বিষয়ে তিনি বলেন, নীতিমালা অনুযায়ী যোগ্য প্রতিষ্ঠানই কোন সুপারীশ ছাড়াই এমপিও ভুক্ত হবেন। আর যারা নীতিমালার শর্তপূরনে ব্যর্থ তারা কোন ভাবেই এমপিও ভুক্ত হবেন না। বক্তব্য শেষে নুরুলদ্দীনের কবিতা আবৃত্তি করে শোনান শিক্ষামন্ত্রী।

সভাপতির বক্তব্যে সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ এমপি বলেন, ১৯৭৫ সালে ১৫ই আগষ্ট দেশ বিরোধী হায়েনার দল যারা কোনো দিন এদেশের স্বাধীনতাকে মেনে নিতে পারেননি তারাই ষড়যন্ত্র করে কাপূরুষের মত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারের সদস্যদের হত্যা করে এদেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় পরিচালিত করে। দেশের স্বাধীনতাকে ভূলন্টিত করার অপচেষ্টা করে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিনত হয়েছে। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলেজের প্রতিষ্ঠাতা ড. মোজাম্মেল হক। এছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন গেরিলা লিডার ড. এসএম শফিকুল ইসলাম, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মতিয়ার রহমান, কলেজ অধ্যক্ষ আব্দুর রউফ সরকার, জেলা প্রশাসক আবু জাফর, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মশিউর রহমান প্রমুখ।
শিক্ষামন্ত্রী কলেজের গুরু নানক লাইব্রেরী, কম্পিউটার ল্যাবসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।


এ জাতীয় আরও খবর :